ই-পেপার সোমবার, ২০ মে ২০২৪, ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের ই-রিটার্ন প্রকল্প

মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন, প্রশ্নবিদ্ধ এনবিআর

মো. রাজিব উদ্-দৌলা চৌধুরী
প্রিন্ট ভার্সন
১৮ এপ্রিল ২০২৪, ১১:১৩

মাত্র দুই কোটি টাকা খরচ করে ১০ মাসে ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) সহায়তায় জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) একটি বিশেষ টিম অনলাইনে আয়কর রিটার্ন দাখিল করার জন্য ই-রিটার্ন সিস্টেম চালু করে। বর্তমান ই-রিটার্ন ব্যবস্থা আগের তুলনায় অনেক সহজ ও করদাতাবান্ধব হওয়ায় এটি বেশ জনপ্রিয়তা পায়। সর্বশেষ পাওয়া তথ্য অনুযায়ী, অনলাইনে রিটার্ন দাখিল করা করদাতার সংখ্যা সাড়ে চার লাখ ছাড়িয়েছে।

ই-রিটার্ন সিস্টেমটি মেইনটেন্যান্স, নিরাপত্তা ও আপডেটসহ ই-ট্যাক্স সার্ভিস সেন্টার পরিচালনা এবং আর্থিক-প্রযুক্তিগত সহায়তা দিয়েছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ)। তাদের (ইইউ) সেই কারিগরি সহায়তার মেয়াদ চলতি বছরের জুন মাসে শেষ হচ্ছে। গত ২৭ ফেব্রুয়ারি আন্তঃমন্ত্রণালয়ের বৈঠকে মেয়াদ ২০২৫ সালের ৩০ জুন পর্যন্ত বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। কিন্তু সেটি বাস্তবায়ন করা হচ্ছে না। বরং এনবিআর থেকে প্রকল্পের ব্যয় না বাড়ানোর সিদ্ধান্ত আসে। ফলে প্রকল্পটি থেকে নিজেদের গুটিয়ে নিচ্ছে ইইউ। এ কারণে সব দায়দায়িত্ব নিতে হচ্ছে এনবিআরকেই। এনবিআরের নথিপত্র সূত্রে এমন তথ্য জানা গেছে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, এখন আশঙ্কার জায়গা হলো ই-রিটার্ন সিস্টেমের পুরো দায়িত্ব নিতে এনবিআর কতটুকু প্রস্তুত কিংবা করসেবা আগের মতো পাওয়া যাবে কি না ইত্যাদি বিষয়ে করদাতাদের মধ্যে এক ধরনের ভয় কাজ করছে। করদাতারা বলছেন, ২০১৬-১৭ সালে ৫৯ কোটি টাকা ব্যয়ে দেশের প্রথম অনলাইন রিটার্ন ব্যবস্থা চালু হলেও তেমন ফলপ্রসূ ছিল না। উল্টো ভিয়েতনামের ‘ইনফরমেশন সিস্টেম কর্পোরেশন’ নামক প্রতিষ্ঠানটি ২০১৯ সালে এনবিআরের সঙ্গে চুক্তির মেয়াদ শেষ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে সফটওয়্যারের কাজ বুঝিয়ে না দিয়ে চলে যায়। ফলে ২০২০-২১ অর্থবছরে অনলাইনে রিটার্ন জমা দেয়ার ব্যবস্থাটি বন্ধ থাকে। ওই সময় ১৫ হাজারের মতো করদাতা অনলাইনে রিটার্ন দাখিল করেন। পরবর্তীতে এনবিআরও ফাইল ট্রান্সফার প্রটোকল (এফটিপি) সিস্টেম সচল রাখতে পারেনি। ফলে সরকারকে প্রকল্পের পুরো টাকা গচ্চা দিতে হয়েছে।

ই-রিটার্ন সিস্টেমটি মেইনটেন্যান্স, নিরাপত্তা ও আপডেটসহ ই-ট্যাক্স সার্ভিস সেন্টার পরিচালনা এবং আর্থিক-প্রযুক্তিগত সহায়তা দিয়েছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ)। তাদের (ইইউ) সেই কারিগরি সহায়তার মেয়াদ চলতি বছরের জুন মাসে শেষ হচ্ছে। গত ২৭ ফেব্রুয়ারি আন্তঃমন্ত্রণালয়ের বৈঠকে মেয়াদ ২০২৫ সালের ৩০ জুন পর্যন্ত বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। কিন্তু সেটি বাস্তবায়ন করা হচ্ছে না। বরং এনবিআর থেকে প্রকল্পের ব্যয় না বাড়ানোর সিদ্ধান্ত আসে। ফলে প্রকল্পটি থেকে নিজেদের গুটিয়ে নিচ্ছে ইইউ। এ কারণে সব দায়দায়িত্ব নিতে হচ্ছে এনবিআরকেই।

এ বিষয়ে নাম প্রকাশ না করে এনবিআরের ঊর্ধ্বতন এক কর্মকর্তা বলেন, কর বিভাগে স্বয়ংক্রিয় ব্যবস্থা চালুর জন্য এনবিআর ২০১১ সালে ‘স্ট্রেনদেনিং গভর্ন্যান্স ম্যানেজমেন্ট’ শীর্ষক একটি প্রকল্প বাস্তবায়ন করে। প্রকল্পটির আওতায় বাংলাদেশ ইন্টিগ্রেটেড ট্যাক্স (বাইট্যাক্স) সিস্টেম চালু করা হয়। ভিয়েতনামের এফপিটি ইনফরমেশন সিস্টেম কর্পোরেশন এ সিস্টেম বা সফটওয়্যার তৈরির কাজ করে। যেখানে আন্তর্জাতিক দরপত্রের মাধ্যমে ৫১ কোটি টাকায় কাজটি পায় প্রতিষ্ঠানটি। তারা অনলাইনে রিটার্ন দেয়ার সফটওয়্যার, করদাতার তথ্যভাণ্ডার তৈরি করে। ২০১৬ সালে সফটওয়্যারটি আনুষ্ঠানিকভাবে চালু হলেও প্রক্রিয়াগত জটিলতায় করদাতাদের মধ্যে তেমন সাড়া ফেলতে পারেনি। তার ওপর ভিয়েতনামি প্রতিষ্ঠানটি ২০১৯ সালে চুক্তির মেয়াদ শেষ করে চলে যায়। যাওয়ার আগে তারা এনবিআরকে সফটওয়্যারের কাজ বুঝিয়েও দেয়নি। ফলে ২০২০-২১ অর্থবছরে অনলাইনে রিটার্ন জমা দেয়ার ব্যবস্থাটি বন্ধ থাকে। সুতরাং, এখানে এনবিআরের সক্ষমতা বড় একটি প্রশ্ন।

অন্যদিকে, এনবিআরের আয়কর বিভাগের সাবেক সদস্য কালিপদ হালদার বলেন, ‘নানাবিধ জটিলতায় আগের ই-রিটার্ন সিস্টেম সক্রিয় থাকেনি। বর্তমান ই-রিটার্ন সিস্টেমটি ব্যক্তিশ্রেণির করদাতার জন্য তুলনামূলক সহজ। ইতোমধ্যে কয়েক লাখ করদাতা অনলাইনে রিটার্ন দাখিল করছেন বলে জানান। ব্যবস্থাপনা নিয়ে বিস্তারিত জানি না। তবে, এটুকু বলতে পারি যে বর্তমান এনবিআরের আইটি বিভাগে দক্ষ কর্মী ও লোকবলের সংকট রয়েছে। এ কাঠামো দিয়ে ই-রিটার্নের মতো বড় প্রজেক্ট সচল রাখা কঠিন।’

এনবিআরের ঊর্ধ্বতন এক কর্মকর্তা (নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক) ২০১৬ সালে সফটওয়্যারটি আনুষ্ঠানিকভাবে চালু হলেও প্রক্রিয়াগত জটিলতায় করদাতাদের মধ্যে তেমন সাড়া ফেলতে পারিনি। তার ওপর ভিয়েতনামি প্রতিষ্ঠানটি ২০১৯ সালে চুক্তির মেয়াদ শেষ করে চলে যায়। যাওয়ার আগে তারা এনবিআরকে সফটওয়্যারের কাজ বুঝিয়েও দেয়নি। ফলে ২০২০-২১ অর্থবছরে অনলাইনে রিটার্ন জমা দেয়ার ব্যবস্থাটি বন্ধ থাকে। সুতরাং, এখানে এনবিআরের সক্ষমতা বড় একটি প্রশ্ন। সক্ষমতা না বাড়িয়ে পুরো সিস্টেমের দায়িত্ব নিলে জটিলতায় পড়তে পারে ।

‘অনলাইন ব্যবস্থাপনাটি যদি সত্যি সত্যি শক্তিশালী করতে হয়, তাহলে এ খাতে সরকারকে বিনিয়োগ করতে হবে। দক্ষ ও পর্যাপ্ত লোকবল নিয়োগ দিতে হবে। তা না হলে যে কোনো প্রজেক্টই দীর্ঘমেয়াদে সেবা দিতে পারবে না। বিদেশে এমন প্রজেক্টে হাজার হাজার জনবল নিয়োগ দেয়া হয়। সে তুলনায় আমরা এখনও পিছিয়ে আছি।’

আয়কর বিভাগের সংশ্লিষ্ট দপ্তর সূত্রে জানা যায়, এনবিআরের কর ও তথ্য মূল্যায়ন শাখা কিংবা সিস্টেম অ্যানালিস্ট বিভাগ চলতি মাসের প্রথম সপ্তাহে এ সংক্রান্ত চিঠি দেয়। যেখানে বলা হয়, ‘এনবিআরে চলমান ই-রিটার্ন সিস্টেমের মেইনটেন্যান্স, নিরাপত্তা ও আপডেটসহ ই-ট্যাক্স সার্ভিস সেন্টার পরিচালনা ও প্রচারণার কাজ ইউরোপীয় ইউনিয়নের অর্থায়নে ‘ইইউ পিএফএম টিএ’ কর্মসূচির আওতায় অব্যাহত সাপোর্টের মেয়াদ চলতি বছরের জুন মাসে শেষ হয়ে যাবে। গত ২৭ ফেব্রুয়ারি ‘বাংলাদেশে পিএফএম সংস্কার কর্মসূচির কৌশলগত পরিকল্পনা বাস্তবায়নে প্রযুক্তিগত সহায়তা’ শীর্ষক প্রকল্পের মেয়াদ চলতি বছরের ১ জুলাই থেকে ২০২৫ সালের ৩০ জুন পর্যন্ত বাড়ানোর বিষয়ে ভার্চুয়াল প্লাটফর্মে ইআরডির অতিরিক্ত সচিব ও অনুবিভাগ প্রধানের (ইউরোপ) সভাপতিত্বে একটি আন্তঃমন্ত্রণালয় সভা অনুষ্ঠিত হয়। ওই সভার কার্যবিবরণী অনুযায়ী প্রকল্পের অনুকূলে ব্যয় বৃদ্ধি ব্যতিরেকে মেয়াদকাল ২০২৫ সালের ৩০ জুন পর্যন্ত বর্ধিত করার জন্য সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। যার কার্যবিবরণী এনবিআর চেয়ারম্যানকে প্রেরণ করা হয়েছে। যেহেতু প্রকল্পের অনুকূলে ব্যয় বৃদ্ধি করা হবে না, সেহেতু ইইউ পিএফএম টিএ কর্মসূচির আওতায় তাদের অর্থায়নে চলমান ই-রিটার্ন সিস্টেমের কার্যক্রম চলতি বছরের ৩০ জুনের পর অব্যয়িত ফান্ড দিয়ে বেশিদিন চালিয়ে নেয়া সম্ভব হবে না। ফলে ই-রিটার্ন সিস্টেমটির পরিচালন ব্যয় ও কারিগরি সব ব্যবস্থাপনা এনবিআরের নিজস্ব জনবল দ্বারা পরিচালনার প্রয়োজন হবে।’

চিঠি সূত্রে আরও জানা যায়, যেহেতু চুক্তির মেয়াদ বৃদ্ধির বিষয়টি সম্পূর্ণ অনিশ্চিত এবং চুক্তি বৃদ্ধি না হলে সিস্টেমটির পরিচালন ব্যয়সহ কারিগরি ও সব ব্যবস্থাপনা এনবিআরের নিজস্ব আইটি ও জনবল দ্বারা পরিচালনার প্রয়োজন হবে। সেহেতু ই-রিটার্ন সিস্টেমটি চলমান রাখা এবং করদাতাদের নিরবচ্ছিন্ন সেবা প্রদানের জন্য রিটার্ন সিস্টেমটি ভেন্ডর প্রতিষ্ঠান সিনেসিস আইটি লিমিটেডসহ সংশ্লিষ্ট অন্যান্য প্রতিষ্ঠানকে টেকনিক্যাল বিষয় বুঝে নেয়ার অনুরোধ জানিয়ে ইতোমধ্যে চিঠি দেয়া হয়েছে। করদাতাকে নিরবচ্ছিন্ন সেবা প্রদানের স্বার্থে ওই আইটি প্রতিষ্ঠান হতে সোর্স কোডসহ অন্যান্য সকল টেকনিক্যাল বিষয় বুঝে নেয়ার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য এনবিআরের সিস্টেম অ্যানালিস্ট বিভাগকে অনুরোধ করেছে কর তথ্য ব্যবস্থাপনা ও মূল্যায়ন শাখা। একই সাথে সময়ে সময়ে ই-রিটার্ন সিস্টেম হস্তান্তরের অগ্রগতিমূলক প্রতিবেদন দাখিল করার জন্য অনুরোধ করা হয়েছে।

কর বিভাগে স্বয়ংক্রিয় ব্যবস্থা চালুর জন্য এনবিআর ২০১১ সালে ‘স্ট্রেনদেনিং গভর্ন্যান্স ম্যানেজমেন্ট’ শীর্ষক একটি প্রকল্প বাস্তবায়ন করে। যেখানে খরচ হয় ৫৯ কোটি টাকা। প্রকল্পটির আওতায় বাংলাদেশ ইন্টিগ্রেটেড ট্যাক্স (বাইট্যাক্স) সিস্টেম চালু করা হয়। ভিয়েতনামের এফপিটি কর্পোরেশন নামক প্রতিষ্ঠান এ সিস্টেম বা সফটওয়্যার তৈরির কাজ পায়। আন্তর্জাতিক দরপত্রের মাধ্যমে ৫১ কোটি টাকায় কাজটি চূড়ান্ত হয়। কাজের অংশ হিসেবে অনলাইনে রিটার্ন দেয়ার সফটওয়্যার, করদাতার তথ্যভাণ্ডার তৈরি করা হয়। ২০১৬ সালেই সফটওয়্যারটি আনুষ্ঠানিকভাবে চালু করা হয়। ওই বছরের নভেম্বর মাসে তৎকালীন অর্থমন্ত্রী নিজের রিটার্ন জমা দিয়ে অনলাইন ব্যবস্থাটির উদ্বোধন করেন। যদিও প্রথম বছরে তেমন একটা রিটার্ন জমা পড়েনি। পরের তিন অর্থবছরে করদাতারা অনলাইনে রিটার্ন দাখিল করতে পারেন। এর মধ্যে ২০১৭-১৮ অর্থবছরে প্রায় পাঁচ হাজার, ২০১৮-১৯ অর্থবছরে পাঁচ হাজার ৮৪৮ জন এবং ২০১৯-২০ অর্থবছরে সাত হাজার ২০৭ জন করদাতা অনলাইনে রিটার্ন জমা দেন। ই-রিটার্ন ব্যবস্থা চালু করতে ভিয়েতনামের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানটির সঙ্গে এনবিআরের চুক্তির মেয়াদ ছিল ২০১৯ সাল পর্যন্ত। মেয়াদ শেষ হতেই তারা চলে যায়। কিন্তু যাওয়ার আগে তারা এনবিআরকে সফটওয়্যারের কাজ বুঝিয়ে দেয়নি। ফলে ২০২০-২১ অর্থবছরে অনলাইনে রিটার্ন জমা দেয়ার ব্যবস্থাটি সম্পূর্ণ বন্ধ ছিল।

২০২০ সালের নভেম্বর মাসে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) আয়কর বিভাগের একটি বিশেষ দল নতুন অনলাইন ব্যবস্থা উদ্ভাবন করে। ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) ২০২০ সালের নভেম্বর মাসে এনবিআরকে দুই কোটি টাকা অনুদান দেয়। ওই টাকা দিয়ে আয়কর বিভাগ অনলাইনে নিবন্ধন, রিটার্ন জমা, কর পরিশোধসহ আয়কর-সংক্রান্ত যাবতীয় কার্যক্রম পরিচালনার আধুনিক ব্যবস্থা চালুর উদ্যোগ নেয়। এজন্য আয়কর বিভাগে একটি বিশেষ টিম গঠন করা হয়। মাত্র ১০ মাসেই তারা পুরো ই-রিটার্ন ব্যবস্থাটি প্রস্তুত করে। এ ব্যবস্থায় অনলাইনে নিবন্ধন নেয়া, রিটার্ন প্রস্তুত ও জমা এবং কর পরিশোধসহ এ সংক্রান্ত যাবতীয় কাজ সম্পন্ন করা যায়। পরবর্তীতে রিটার্ন জমার প্রাপ্তি স্বীকারও পাওয়া যায়। বর্তমানে ট্যাক্স সার্টিফিকেট প্রাপ্তিও যোগ করা হয়েছে এখানে।

ই-রিটার্ন দিতে চাইলে প্রথমে এনবিআর www.etaxnbr.gov.bd ওয়েবসাইটে গিয়ে নিবন্ধন করতে হবে। নিবন্ধন অপশনে গেলে কর শনাক্তকরণ নম্বর (টিআইএন) দিতে হবে। এরপর নিজের নামে নিবন্ধিত মুঠোফোন নম্বর দিতে হবে। পরে ক্যাপচা লিখে সত্যতা যাচাই করতে হবে। স্বয়ংক্রিয়ভাবে আপনার জাতীয় পরিচয়পত্র, টিআইএন নম্বর, মোবাইল ফোনের তথ্য যাচাই করে ওয়ান টাইম পাসওয়ার্ড (ওটিপি) দেয়া হবে। এ প্রক্রিয়ায় নিজের জন্য একটি পাসওয়ার্ড দিতে হবে। এভাবে হয়ে যাবে ই-রিটার্ন নিবন্ধন।

আমার বার্তা/জেএইচ

পুলিশ-ওয়ার্ড মাস্টারের নিয়ন্ত্রণে সক্রিয় চাঁদাবাজ চক্র

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চারপাশের দেয়াল, ফুটপাত আর রাস্তা ঘিরে অবৈধভাবে গড়ে উঠেছে ছয় শতাধিক

বদলির দুই মাসেও নতুন কর্মস্থলে যাননি প্রকৌশলী মনিরুজ্জামান

অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগে বদলি হওয়ার দুই মাসেও নতুন কর্মস্থলে যাননি গৃহায়ণ ও গণপূর্ত অধিদপ্তরে উপসহকারী প্রকৌশলী

উন্নয়নকাজের খোঁড়াখুঁড়িতে ভোগান্তি নগরবাসীর

রাজধানীর কোথাও ড্রেনেজ ব্যবস্থা ঠিক করতে সিটি করপোরেশন সড়ক খোঁড়াখুঁড়ি করছে। কোথাও আবার স্যুয়ারেজ লাইন

স্পেশাল ম্যাংগো ট্রেন চালুর উদ্যোগ

  পঞ্চমবারের মতো এবারও স্পেশাল ম্যাংগো ট্রেন চালুর উদ্যোগ নিয়েছে রেলওয়ে। এই ট্রেনটি বিগত বছরে চলেছে
  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

মারা গেলেন বরেণ্য সাহিত্যিক হোসেনউদ্দীন হোসেন

ইরানের প্রেসিডেন্টের মৃত্যুর খবরে বেড়েছে তেলের দাম

রাইসির মৃত্যু মুসলিম বিশ্বের জন্য অপূরণীয় ক্ষতি: ফখরুল

রাষ্ট্রপতির সঙ্গে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিনিধি দলের সাক্ষাৎ

বৃক্ষ সংরক্ষণ ও সম্প্রসারণ বিষয়ক গবেষণা বৃদ্ধি করা হবে

১২৬ দেশে যেতে জটিলতা কাটছে বাংলাদেশিদের

সিইসির বেতন ১০৫০০০, ইসিরা পাবেন ৯৫০০০

ভারত থেকে রেলের ২০০ বগি কেনার চুক্তি সই

রাজধানীতে গরমে আনসার সদস্যের মৃত্যু

তাপপ্রবাহ নিয়ে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে মাউশির নতুন নির্দেশনা

বঙ্গবন্ধু শান্তি পদক ঘোষণা, পুরস্কার কোটি টাকা ও স্বর্ণ পদক

অটোরিকশা চলাচলে নীতিমালা করার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

অর্থনীতি শূন্যে ঝুলছে, যেকোনো সময় ক্র্যাশল্যান্ডিং হতে পারে: রিজভী

ব্যাটারিচালিত রিকশা নির্দিষ্ট এলাকায় চালানোর ব্যবস্থার নির্দেশ

দক্ষিণ আফ্রিকা ও শ্রীলঙ্কা দুই দলের সঙ্গেই জেতা উচিত: মাশরাফি

বাজেট অধিবেশন শুরু ৫ জুন

ইরানের প্রেসিডেন্টের মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর শোক

খেলাধুলা ও সাংস্কৃতিতে দক্ষরা বিশেষ মেধাসম্পন্ন: জবি উপাচার্য

বিসিবির এইচপি দলে জায়গা পেলেন যে ২৫ ক্রিকেটার

কুমিল্লায় ট্রাকচাপায় মোটরসাইকেলের ২ আরোহী নিহত